ববি ডানবার: ভুল পরিচয়ে সারাজীবন কাটানো এক হতভাগা

২৩ আগস্ট ১৯১২

পার্সি ও লেসি ডানবার মার্কিন দম্পতি। তারা তাদের তাদের ৪ বছর বয়সী বড় সন্তান (একমাত্র ছেলে সন্তান) রবার্ট ক্লারেন্স ডানবার (তাকে তারা স্নেহের সাথে ববি ডানবার নামে ডাকত) কে নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের লুসিয়ানার ওপোলোসাসের কাছে সোয়েজ লেকে মাছ ধরতে নিয়ে যায়।
কিন্তু কে জানতো? এই মাছ ধরা ভ্রমণ তাদের বংশের স্থায়ীভাবে ইতি ঘটাবে তাও নাটকীয়ভাবে!
মাছ ধরতে তারা সেই লেকে সকালে গিয়েছিলো। তাদের প্ল্যান ছিলো পুরো পরিবার সারাদিন মাছ ধরে সন্ধ্যার দিকে বাড়ি ফিরবে।

কিন্তু দূর্ভাগ্যজনক ভাবে ববি ডানবার দুপুরের খাবার খাওয়ার ঠিক আগ মুহূর্তে কোনো প্রকার চিহ্ন না রেখেই উধাও হয়ে যায়।

পুলিশের অনুসন্ধান

ববি ডানবার হারিয়ে যাওয়ার সাথে সাথেই তার পরিবার পুলিশের দারস্থ হন। পুলিশ প্রথমেই ভেবে নেয় ববি হারিয়ে যায় নি, তাকে কেউ অপহরণ করেছে। তাই পুলিশ পুরো রাজ্য ও দেশব্যাপী অনুসন্ধান চালানো শুরু করে। সেই সাথে কেউ তার সন্ধান দিতে পারলে ৬ হাজার মার্কিন ডলার পুরষ্কার ও ঘোষণা করে। ১৯১২ সালে ৬ হাজার মার্কিন ডলার কি বিশাল পরিমাণ অর্থ অনুমান করতে পারছেন নিশ্চয়ই?

যাই হোক ববির পরিবার যেহেতু অনেক ধনী ছিলো তারা অর্থ খরচ করতে কুণ্ঠাবোধ করেনি। আর ববিই তাদের বংশের একমাত্র ছেলে সন্তান। তাই দেশব্যাপী ববির ছবি ছাপিয়ে তার সাথে ববির শারিরীক বিবরণ ছাপিয়ে প্রচার প্রচালনা চালাতে থাকে।

পোস্ট কার্ডে লেখা ছিলোঃ- বড় গোল গোল নীল চোখ, চুলের রঙ কালো তবে বেশি ঘন নয়, গাল গোলাপি ও গায়ের রঙ অনেক ফর্সা, ছিমছাম স্বাস্থ্য খুব বেশি নয়। বাম পায়ের বুড়ো আঙুলে একটি শিশু যখন পুড়ে যায় তখন খারাপভাবে দাগ পড়ে।

পুলিশ ও ববির পরিবারের দীর্ঘ ৮ মাস ধরে চালানো অভিযানের পর, ববির চেহারা সাথে মিল পাওয়া একটি অল্পবয়স্ক ছেলের কথা পুলিশ কর্তৃপক্ষের কাছে পৌঁছায়। ছেলেটিকে মিসিসিপিতে পাওয়া গেছে, সে পুরোপুরি নিরাপদ ও সুস্থ আছে।

পত্রিকার পাতায় ববি ডানবারের সংবাদ; Source: afterfeed.com

ববির চেহারা সাথে যে বালকটির মিল পাওয়া যায় সে উইলিয়াম ক্যান্টওয়েল ওয়াল্টার্স নামে এক পিয়ানো মেরামতকারীর সাথে অবস্থান করছিল।

ওয়াল্টার্স দাবি করে, ছেলেটি ববি ডানবার না; বরং তার নাম চার্লস ব্রুস অ্যান্ডারসন, ডাকনাম ব্রুস। তার মায়ের নাম জুলিয়া অ্যান্ডারসন, যে ওয়াল্টার্সদের বাসায় কাজ করত। ওয়াল্টার্সের দাবি অনুযায়ী, জুলিয়ার অনুরোধে সে গত ১৩ মাস ধরে ছেলেটিকে লালন-পালন করে আসছিল। কিন্তু পুলিশ ওয়াল্টার্সের কথা বিশ্বাস না করে তাকে গ্রেপ্তার করে এবং ডানবার দম্পতিকে সংবাদ দেয় তাদের ছেলেকে শনাক্ত করতে আসার জন্য।

সংবাদ পেয়েই ডানবার দম্পতি মিসিসিপিতে ছুটে যান। ববিকে তারা প্রথম দেখাতেই শনাক্ত করতে পেরেছিলেন কিনা, তা নিয়ে অবশ্য বিতর্ক আছে। কিছু কিছু পত্রিকার তথ্য অনুযায়ী, লেসি ডানবারকে দেখামাত্রই ববি তাকে চিনতে পারে এবং ‘মা’ বলে ডেকে ওঠে। কিন্তু অন্যান্য পত্রিকার বর্ণনা অনুযায়ী, ববি তার মাকে চেনার মতো কোনো লক্ষণ দেখায়নি, বরং সে কেঁদে উঠেছিল। অন্যদিকে লেসি ডানবারও প্রথমে সম্পূর্ণ নিশ্চিত হতে পারেননি যে, ছেলেটি আসলেই ববি কিনা।

নিখোঁজের আগে (বামে) ও পরে (ডানে) ববি ডানবার; Source: afterfeed.com



একই রকম পরস্পর বিরোধী বক্তব্য পাওয়া যায় ববির ভাই আলঞ্জোর সাথে তার সাক্ষাতের ঘটনা নিয়েও। কিছু পত্রিকার দাবি অনুযায়ী, ববি আলঞ্জোকে চিনতে পারার কোনো লক্ষণ দেখায়নি। কিন্তু অন্য কিছু পত্রিকার বর্ণনা মতে, আলঞ্জোকে দেখে ববি সাথে সাথেই তার নাম ধরে ডেকে ওঠে এবং তাকে চুমু খায়।

আরো পড়ুন   ইতিহাস থেকে হারিয়ে যাওয়া ৬ টি ঘৃণ্য কর্মকাণ্ড

প্রথম সাক্ষাতের বিষয়ে বিতর্ক থাকলেও মোটামুটি প্রায় সব পত্রিকা এ বিষয়ে একমত যে, পুলিশ প্রথমে সাময়িকভাবে ববিকে ডানবার দম্পতির সাথে থাকার অনুমতি দেয়। পরদিন সকালে লেসি ডানবার যখন ববিকে গোসল করাতে যান, তখন তিনি ববির শরীরের জন্মদাগ এবং বাম পায়ে একটি পোড়া দাগের চিহ্ন দেখতে পেয়ে তাকে নিজের ছেলে হিসেবে নিশ্চিতভাবে শনাক্ত করেন। ফলে পুলিশ ডানবার দম্পতিকেই ববির পিতা-মাতা হিসেবে স্বীকৃতি দেয় এবং অপহরণের অভিযোগে ওয়াল্টার্সকে আটক রাখে।

ববিকে নিয়ে ডানবার দম্পতি লুইজিয়ানায় ফিরে যাওয়ার কিছুদিন পরেই সেখানে হাজির হন জুলিয়া অ্যান্ডারসন। ওয়াল্টার্সের বক্তব্যের প্রতিধ্বনি করে তিনি ববিকে ব্রুস হিসেবে এবং নিজেকে ব্রুসের মা হিসেবে দাবি করেন। তিনি বলেন, ববি/ব্রুস তার সন্তান, কিন্তু তিনি তাকে মাত্র দু’দিনের জন্য ওয়াল্টার্সের কাছে রেখে অন্য জায়গায় গিয়েছিলেন। পরে অবশ্য জানা যায়, ববি/ব্রুস আসলে ১৩ মাস ধরে ওয়াল্টার্সের সাথে বসবাস করছিল।

পুলিশ জুলিয়ার বক্তব্য যাচাই করার জন্য তার সামনে ববি সহ একই বয়েসের এবং একই দৈহিক গড়নের পাঁচটি বালককে উপস্থিত করে এবং তাদের মধ্য থেকে ববিকে খুঁজে বের করতে বলে। ১৩ মাস ধরে ছেলেকে না দেখায় জুলিয়া তাকে শনাক্ত করতে ব্যর্থ হন। ফলে পুলিশের মনে বদ্ধ ধারণা হয় যে, জুলিয়ার দাবি আসলে মিথ্যা।

পরের দিন সকালে জুলিয়া পুনরায় থানায় যান এবং ববির জামা খুলে তার জন্মদাগ দেখে তাকে নিশ্চিতভাবে শনাক্ত করেন। কিন্তু ততক্ষণে তার আগের দিনের ব্যর্থতা পুলিশের মনে স্থায়ী প্রভাব ফেলে দিয়েছিল। তাছাড়া স্থানীয় পত্রিকাগুলো জুলিয়ার বিবাহ বহির্ভূত অবস্থাতেই তিন সন্তানের জননী হওয়ার ঘটনার উপর আলোকপাত করে তার চরিত্রকে প্রশ্নবিদ্ধ করে তোলে। ফলে আদালতের রায়ও স্বাভাবিকভাবেই জুলিয়ার বিরুদ্ধে যায়।

আদালত ববিকে ডানবার দম্পতির সন্তান হিসেবে রায় দেয়, জুলিয়াকে মিথ্যাবাদী হিসেবে চিহ্নিত করে এবং অপহরণের অভিযোগে ওয়াল্টার্সকে কারাদণ্ড দেয়। ববি আদালতের রায় পেয়ে ডানবার দম্পতির সন্তান হিসেবে স্বীকৃতি লাভ করে এবং সুখী ও পরিপূর্ণ জীবনযাপন শেষে ৫৮ বছর বয়সে স্বাভাবিক মৃত্যুবরণ করেন। মৃত্যুকালে তিনি স্ত্রী ও চার সন্তান রেখে গিয়েছিলেন।

পরিণত বয়সে ববি ডানবার; Source: seattlepi.com



উইলিয়াম ওয়াল্টার্সের ভাগ্য

ব্যাপকভাবে সংবাদপত্রে প্রচারের ফলে, দুই সপ্তাহের বিচারের পর, ওয়াল্টার্সকে ববি ডানবার অপহরণের জন্য দোষী সাব্যস্ত করা হয়েছিল। অপরাধের জন্য তাকে শাস্তি হিসেবে ফাঁসি দিয়ে মৃত্যুদন্ড দেয় তবে তা কার্যকর হয়নি। পরে তাকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেয়া হয়, কিন্তু মাত্র ২ বছর জেল খেটে তিনি ১৯১৫ সালে জামিন পান।

উইলিয়াম ওয়াল্টাস কে বাকি জীবটা অসম্মানের সাথে কাটাতে হয়েছিল। সেই অসম্মান ও হিনম্মতা সহ্য করতে না পেরে মুক্তির ৩০ বছর পর ১৯৪৫ সালের ৭ এপ্রিল বিষ পান করে আত্মহত্যা করেন।

জুলিয়া অ্যান্ডারসনের ভাগ্য

জুলিয়া উত্তর ক্যারোলিনায় ফিরে আসেন, যেখানে তিনি স্থায়ী হন, বিয়ে করেন, সাত সন্তানের মা হন এবং একজন খ্রিস্টান হন। তার বংশধরদের মতে, তিনি প্রায়শই ব্রুস সম্পর্কে কথা বলতেন এবং ডানবার পরিবার কে তার ছেলের নির্লজ্জ অপহরণকারী হিসাবে উল্লেখ করেছিলেন।

তবে তার একমাত্র সান্ত্বনা ছিলো তার ছেলে একটি ধনী পরিবারে মানুষ হয়ে ভদ্র শিক্ষিত হচ্ছে। ছেলে তার কাছে থাকলে হয়তো তার কিছুই পেতো না। বেঁচে থাকতে জুলিয়া তার ছেলেকে আর কখনোই দেখতে পান নি।

ডিএনএ টেস্ট এর মাধ্যমে রহস্য উদঘাটন

২০০৪ সালে, ববির মৃত্যুর ৩৮ বছর পরে, তার দৌহিত্রী মার্গারেট ডানবার কাটরাইট ব্যক্তিগত কৌতূহল থেকে নতুন করে তার দাদার নিখোঁজ রহস্যের ব্যাপারে অনুসন্ধান শুরু করেন। তিনি পুরানো পত্রিকা সংগ্রহ করেন, জুলিয়া অ্যান্ডারসনের পরিবারের সদস্যদের সাক্ষাৎকার গ্রহণ করেন, এমনকি আদালতে উপস্থাপন করা তথ্য-প্রমাণগুলোও যাচাই করে দেখেন। এক পর্যায়ে তার সন্দেহ থাকে, তার দাদা হয়তো আসলে ববি ডানবার না-ও হতে পারেন।

আরো পড়ুন   দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে শিশুদের কনসেন্ট্রেশন ক্যাম্প: অনাহারে, তৃষ্ণায় ও অসুখে ভোগে মৃত্যু হতো শিশুদের

মার্গারেট বিষয়টি নিশ্চিত করার জন্য পরিবারের সদস্যদেরকে ডিএনএ টেস্টের ব্যাপারে রাজি করান। ববি ডানবারের ছেলে, রবার্ট ডানবার জুনিয়র এবং ববির ছোট ভাই আলঞ্জোর ছেলে ডিএনএ টেস্টে অংশগ্রহণ করেন। ববি যদি সত্যি সত্যিই ডানবারদের সন্তান হতেন, তাহলে টেস্টে অংশগ্রহণকারী দুই চাচাতো ভাইয়ের ডিএনএতে প্রচুর মিল দেখা যেত। কিন্তু টেস্টের ফলাফল থেকে দেখা যায়, তাদের মধ্যে রক্তের কোনো সম্পর্ক নেই! অর্থাৎ ববি আসলে ডানবার পরিবারের সন্তান না, তিনি আসলেই জুলিয়া অ্যান্ডার্সনের ছেলে চার্লস ব্রুস অ্যান্ডারসন তথা ব্রুস!

মার্গারেট পরবর্তীতে ২০০৮ সালে এক রেডিও ডকুমেন্টারিতে তার তদন্ত সম্পর্কে বিস্তারিত তুলে ধরেন। অ্যান্ডারসন পরিবারের সদস্যদের কাছ থেকে তিনি জানতে পারেন, মামলায় হেরে গেলেও জুলিয়া অ্যান্ডারসন মৃত্যুর পূর্ব পর্যন্ত প্রায়ই ববির/ব্রুসের কথা উল্লেখ করতেন। অ্যান্ডারসন পরিবারের সদস্যরা সব সময়ই ব্রুসকে ডানবার পরিবার দ্বারা অপহৃত হিসেবে বিবেচনা করত।

উভয় পরিবারের সদস্যদের কাছ থেকে জানা যায়, ব্রুস যদিও ববি ডানবার হিসেবেই বেড়ে উঠেছিলেন এবং আপাতদৃষ্টিতে সুখী জীবন যাপন করেছিলেন, কিন্তু মনের গহীনে হয়তো তিনি তার সত্যিকার পরিচয় নিয়ে সন্দিহান ছিলেন। তিনি তার জীবদ্দশায় একাধিকবার অ্যান্ডারসন পরিবারের সদস্যদের সাথে সাক্ষাৎ করতে গিয়েছিলেন।

১৯৪৪ সালে ব্রুস, জুলিয়া অ্যান্ডারসনের ছেলে, অর্থাৎ তার সৎ ভাই হলিসের সাথে দেখা করেন। তার বোন জুলসও দাবি করেন, কাছাকাছি সময়ে এক ব্যক্তি তার সাথে দেখা করেন এবং দীর্ঘক্ষণ কথা বলেন। যদিও তিনি তার সত্যিকার পরিচয় দেননি, কিন্তু জুলসের ধারণা, তিনি ছিলেন ব্রুস।

আসল ববি ডানবারের কি হয়েছিল?

বিজ্ঞানের উন্নতির ফলে দেরিতে হলেও ব্রুসের সত্যিকার পরিচয় সম্পর্কে নিশ্চিত হওয়া সম্ভব হয়েছে। কিন্তু সত্যিকার ববি ডানবারের ভাগ্যে কী ঘটেছিল, সে রহস্য আজও সমাধান করা সম্ভব হয়নি। সে কি পানিতে ডুবে মারা গিয়েছিল? নাকি কারো দ্বারা অপহৃত হয়েছিল? মার্গারেট কাটরাইট মনে করেন, ববি হয়তো লেকের পানিতে পড়ে গিয়েছিল এবং সেখানের পানিতে থাকা কুমীরগুলো তাকে খেয়ে ফেলেছিল। কিন্তু এতদিন পরে সেটা নিশ্চিত হওয়ার কোনো উপায় নেই।

Leave a Comment