সবচেয়ে রহস্যময় মৃত্যু: খুন হয়েছিলেন নাকি আত্মহত্যা করেছিলেন?

রোনাল্ড ওপাস ছিলেন আমেরিকায়। তার জীবন হতাশার মাঝে কাটছিল। কর্মক্ষেত্রে কেবলই ব্যর্থই হচ্ছিলেন। আর তাই তিনি তার জীবনের সকল সমস্যার সহজ সমাধান করতে ১৯৯৪ সালে ২৩ মার্চ আত্মহত্যা করার সিদ্ধান্ত নেন। জীবনের প্রতি তীব্র হতাশা থেকেই ওই দিন নিজের এপার্টমেন্টের ১০ তলা বিল্ডিংয়ের ছাদ থেকে লাফিয়ে পড়েন রোনাল্ড ওপাস।

এই বিল্ডিং এর ছাদ থেকেই লাফ দিয়েছিলেন রোনাল্ড ওপাস Image source: Flickr



আত্মহত্যা করার আগে সব নিয়মও পালন করেছিলেন তিনি।
পরিবারের উদ্দেশ্য লেখেন একটি চিঠি। তাতে বলে যান, সুন্দর জীবন নিয়ে বাঁচার জন্য সবটুকু আশা আমি হারিয়ে ফেলেছি। এরপর হাসপাতাল এবং পুলিশের নিয়ম অনুযায়ী পোস্টমর্টেম করে সৎকার করা হয় তার। কয়েকদিন পর যখন পোস্টমর্টেম রিপোর্ট আসে তখনই শুরু হয় সব গণ্ডগোল। সেখানে বলা হয়,রোনাল্ডকে খুন করা হয়েছে। অর্থাৎ তার মাথায় পিস্তলের গুলি মিলেছে।

হতবাক হয়ে যায় পুলিশের সঙ্গে পরিবারের লোকজনও। তদন্তে বেরিয়ে আসে গুলির রহস্য। রোনাল্ড যে বিল্ডিং থেকে লাফ দিয়েছিল সেই বিল্ডিংয়ের ৯ম তলায় থাকতেন এক বৃদ্ধ দম্পতি। সারাক্ষণই তারা ঝগড়ায় লিপ্ত থাকতেন। আর যেইদিন রোনাল্ড ছাদ থেকে লাফ দেয় ঠিক সে সময়ও দম্পতির ঝগড়া করছিল। বৃদ্ধ লোকটি তার স্ত্রীর দিকে বন্দুক তাক করে ভয় দেখাতে থাকে।



এক পর্যায়ে ঝগড়া বাড়াবাড়ি পর্যায়ে চলে গেলে বৃদ্ধ লোকটি অনিচ্ছাকৃতভাবে ট্রিগারে চাপ দেয়। তার স্ত্রী দূরে থাকার কারণে বৃদ্ধের ব্যর্থ নিশানা স্ত্রীর গায়ে না লেগে সোজা বাইরে বেরিয়ে যায়। আর সেই মুহূর্তেই রোনাল্ড ছাদ থেকে লাফ দেয়। সোজা গিয়ে তার মাথায় লাগে বৃদ্ধের ছোড়া গুলি। যার কারণে নিচে পড়ার আগেই রোনাল্ড মারা যায়।

মামলা যখন আদালতে যায় বৃদ্ধ লোকটি বলেন তাদের মধ্যে সবসময়ই ঝগড়া হতো। প্রায়ই সে তার স্ত্রীকে পিস্তল দিয়ে হুমকি দিতেন। তবে পিস্তল সবসময়ই আনলোডেড থাকে। মামলা নিয়ে আরো তদন্ত করার পর অদ্ভুত এক ব্যাপারের উদয় হয়। বৃদ্ধ দম্পতির এক আত্মীয় জানান, তিনি একদিন দেখেন বৃদ্ধ দম্পতির ছেলে বন্দুক লোড করছিল। এর কারণ ছিল, ছেলেটি তার মায়ের কাছে টাকা চাইলেই সে দিত না।

আরো পড়ুন   রাজা-রাণীদের অদ্ভুত ভয়ানক অভ্যাস
সেই ঘটনা কে কেন্দ্র করে বানানো আর্ট ছবি Credit: Doug kerr



আর তাই ছেলেটি বন্দুকে গুলি ভরে রাখে। সে ভালো করেই জানত তার মা-বাবা সবসময় ঝগড়া করে। তার প্লান ছিল পরবর্তীতে ঝগড়া হলে তার বাবা তার মাকে পিস্তল নিয়ে হুমকি দিবে। আর যখন ট্রিগারে চাপ দিবে তখন তার মা মারা যাবে। আর স্ত্রীকে খুন করার অপরাধে তার বাবার জেল হবে। তখন সে সব সম্পত্তির মালিক এমনিতেই হতে পারবে। আর তাই সে পিস্তল লোড করে রাখে। তবে বুলেট তার মায়ের গায়ে না লেগে সোজা রোনাল্ডের মাথায় লাগে।

রহস্যময় বিষয়টি হচ্ছে, রোনাল্ডই আসলে সেই বৃদ্ধ দম্পতির ছেলে! সে অনেক আগেই তার মা-বাবার কাছ থেকে মুক্তি পেতেই পিস্তল লোড করে রাখে। তবে নানান অর্থনৈতিক সমস্যা আর প্রতিনিয়ত মা বাবার ঝগড়া দেখতে দেখতে মানসিকভাবে সেও অসুস্থ হয়ে পড়ে। এতো মানসিক চাপ সে আর নিতে পারছিল না। আর এজন্যই আত্নহত্যার পথ বেছে নেয়।

যখনই সে ছাদ থেকে লাফ দেয় তখনই সেই বুলেটটি তার মাথায় এসে লাগে। আদালত রোনাল্ডের খুন হওয়ার জন্য তাকেই দোষী সাব্যস্ত করে।

রোনাল্ডের এই রহস্যময় মৃত্যু নিয়ে তৈরি হয়েছে অনেক নাটক সিনেমা।
উল্লেখযোগ্য টিভি সিরিয়াল গুলো হচ্ছেঃ-

Homicide, episode 6.11
Law & Order, episode 13.18
Murder Call
Magnolia (Film 1999)
CSI: Miami episode “Spring Breakdown

Leave a Comment