ইতিহাসের বিখ্যাত ১০ টি অমীমাংসিত রহস্য

মানুষ এই গ্রহের সবচেয়ে বুদ্ধিমান প্রাণী। কিন্তু এই পৃথিবীতে এমন অদ্ভুত রহস্যময় ঘটনা ঘটে যা মানুষের বুদ্ধি দ্বারাও রহস্যের জট খোলা সম্ভব হয়ে উঠেনি।

আজ আপনাদের সামনে থাকছে পৃথিবীতে ঘটে যাওয়া ১০ টি অমীমাংসিত রহস্য যার সমাধান কেউ করতে পারে নি।

১. মেরি সেলেস্টের অভিশাপ

মেরি সেলেস্ট নামে আমেরিকান একটি বাণিজ্যিক জাহজ ছিল। জাহাজটি নির্মিত হয়েছিল ১৮৬০ সালে দিকে। জাহাজটি তার জীবনের প্রথম ১০ বছর দুটি দূর্ঘটনা ও একটি আগুন লাগার ভয়াবহ ঘটনার শিকার হয়। ১৮৭২ সাল পর্যন্ত এই জাহাজ কুখ্যাতি অর্জন না করেই এগিয়ে চলছিল।

Image credit: procafenattion

৭ই নভেম্বর ১৮৭২ সালে এই জাহাজটি নিউইয়র্ক শহর ত্যাগ করে ইতালির শহর জেনোয়ার উদ্দেশ্যে রওনা হয়। বেঞ্জামিন স্পুনার ব্রিগস ছিলেন সেই জাহাজের কেপ্টেন এবং তার সাথে তার স্ত্রী ও তার কনিষ্ঠ সন্তান এবং কয়েকজন ক্রু সদস্য ছিলেন।

জাহাজটিতে প্রায় ১৭০০ ব্যারেল পরিমাণ অ্যালকোহলও ছিল। ৪ ঠা ডিসেম্বর ১৮৭২ সালে ক্যাপ্টেন ডেভিড রিড মোরহাউস এবং তার ক্রু, যারা ডেই গ্রাটিয়া জাহাজে ছিল, তারা আজোরস দ্বীপপুঞ্জের উপকূলের কাছে মেরি সেলেস্টকে ভেসে যেতে দেখেছিল।

তারা সেই জাহাজটির ভেতরে ঢুকে পরিদর্শন করেন এবং দেখেন জাহাজটি একম নির্জন। ক্যাপ্টেন ব্রিগস এবং তার বাকি ক্রুরা যেনো জাহাজ থেকে অদৃশ্য হয়ে গিয়েছিল।

মেরি সেলেস্টে কোনো লাইফ বোটের উপস্থিতি ছিল না, তখন তারা ভেবেছে জাহাজের ক্যাপ্টেন ও ক্রু’রা হয়তো জাহাজ ছেড়ে পালিয়ে গেছে।

কিন্তু মনে প্রশ্ন জেগেছিল তারা কেন এমন কাজ করবে? জাহাজে প্রায় ৬ মাসের খাবার মজুদ ছিল। জাহাজের পাল সামান্য ক্ষতি হলেও জাহাজ পুরোপুরি ঠিকঠাক ছিল।

ক্যাপ্টেন মোরহাউস আরও আবিষ্কার করেছিলেন যে অ্যালকোহলের একটি ব্যারেল ফেটে গেছে। কেউ কেউ তখন প্রশ্ন তুলেছিল যে মেরি সেলেস্টকে পরিত্যক্ত করা হয়েছিল কারণ ক্রুরা আশঙ্কা করেছিল যে সমস্ত ব্যারেল যে কোনো মুহূর্তে ফেটে দূর্ঘটনা ঘটে সকলের মৃত্যু হতে পারে! কিন্তু এটা বিশ্বাস করা কঠিন যে একজন অভিজ্ঞ জাহাজ ক্যাপ্টেন একা এই কারণে তার জাহাজটি পরিত্যাগ করবেন।

পরবর্তীতে মেরি সেলেস্টে ফেরত এনে মেরামত করে বেশ কয়েকজন জাহাজ মালিকের অধিনে রেখে বাণিজ্য করতে পাঠালে বাণিজ্য করতে গিয়ে তারা একাধিক সমস্যার সম্মুখীন হয়। তাই অনেকে বিশ্বাস করেন যে এই কুখ্যাত জাহাজটি একটি অভিশপ্ত জাহাজ ছিল।

২. ভয়নিচ পান্ডুলিপি

এটি একটি অজানা ভাষায় হাতে লেখা চিত্রিত ভলিয়মের পান্ডুলিপি। ১৫ শতকের শুরুতে এটি লেখা হয়েছিল এবং এটির নামকরণ করা হয় আলফ্রেড ভয়নিচের নামানুসারে। তিনি মূলত ১৯১২ সালে বইটি ক্রয় করেছিলেন। এটি অসংখ্য বার পড়া হয়েছে কিন্তু এর কোড কেউ ভেদ করতে পারেনি। পান্ডুলিপি টি ৬টি বিভাগে বিভক্ত। হারবাল, জ্যোতির্বিদ্যা, জৈবিক, মহাজাগতিক, ফার্মাসিউটিক্যাল এবং রেসিপি।

Image credit: BBC

কিছু পাতা হারানো গেলেও, এর বর্তমান সংস্করণে প্রায় ২৩৪টি পাতা রয়েছে যার অধিকাংশই চিত্রালংকরণের সাথে গঠিত। পান্ডুলিপিটির অনেক বর্ণনাতে সে সময়ের ভেষজ পান্ডুলিপি, গাছপালার চিত্রালংকরণ এবং তাদের সম্ভাব্য ব্যবহার সম্পর্কিত তথ্য রয়েছে। উদ্ভিদ বিশেষজ্ঞদের মতে – আঁকা উদ্ভিদের অনেকগুলোই কোনো পরিচিত প্রজাতির অনুরূপ না। তারা যৌগিক বলে মনে হয়। কেউ কেউ এই প্রস্তাবটি উত্থাপন করেছেন যে, এটি একটি ফাঁকি কিন্তু বেশিরভাগ মানুষই বিশ্বাস করেন এটি খুব জটিল এবং অত্যাধুনিক। অনেকেই বিশ্বাস করেন, এটি একটি মেডিক্যাল ভলিউম যা এখনো রহস্যের আধার।

৩. ফ্লানান আইল্যান্ডের লাইটহাউজে অদৃশ্য হয়ে যাওয়া

ফ্লানান আইলস লাইটহাউসটি স্কটল্যান্ডের উপকূলে আউটার হেব্রিডে অবস্থিত এবং ১৯০০ সালে এখানে রহস্যজনক কিছু ঘটেছিল।

Image credit: Exploresweb

ডিসেম্বরের মাঝামাঝি সময়ে, বেশ কয়েকটি জাহাজ লক্ষ্য করেছিল যে ফ্লানান আইলস লাইটহাউস চালু ছিল না। কিন্তু ২৬শে ডিসেম্বর পর্যন্ত কেউ তদন্ত করতে যায় নি।

জোসেফ মুর সেই লাইটহাউজের একজন কর্মী ছিলেন। নিজের দায়িত্ব বুঝে নিতে তিনি লাইটহাউজে প্রবেশ করে দেখেন জায়গাটি সম্পূর্ণ নির্জন।
তার সহকর্মী জেমস ডুকাট, টমাস মার্শাল এবং ডোনাল্ড ম্যাকআর্থার সবাই নিখোঁজ ছিলেন। মুর লক্ষ্য করেছিলেন যে লাইটহাউসের রক্ষকদের কোট ও বুটগুলো ভেতরে ছিল না। যা মনে বুঝায় তারা বাহিরে গিয়েছিল কিন্তু কখনো ফিরে আসেনি।

কিন্তু তারা কোথায় গেল এবং তাদের কী হল?

সবচেয়ে সম্ভাব্য ব্যাখ্যা হল যে তারা একটি বিশাল ঢেউ দ্বারা আঘাতপ্রাপ্ত হয়েছিল এবং সমুদ্র তাদের টেনে নিয়ে গিয়েছিল। যাইহোক, বাতিঘর রক্ষাকারীরা জানেন যে ঝড়ের মাঝখানে বের হওয়া কতটা বিপজ্জনক, তাই এই তত্ত্বটি নিয়ে অনেক মতভেদ রয়েছে।

অনেকে আবার ধারণা করেন তারা একে অপরের সাথে মারামারি করে নিজেদের হত্যা করেছেন কিংবা জাহাজ পথে যাওয়া কেউ তাদের ফাঁদে ফেলেছে।

আরো পড়ুন   বেলি গানেস: যার নেশা ছিল স্বামী ও সন্তানদের হত্যা করা

কিন্তু বছরের পর বছর পেরিয়ে গেলেও সেই ঘটনা আজও রহস্য হয়ে রয়েছে। কি হয়েছিল লাইটহাউসের সেই রক্ষকদের সাথে তা কেউ জানে না।

৪. উলপিটের রহস্যময় সবুজ রঙের ভাই বোন

দ্বাদশ শতাব্দীতে হঠাৎ করেই ইংল্যান্ডের উলপিটে একজোড়া ভাই বোনের উদয় হয়। তারা সবদিক থেকেই সাধারণ মানুষের মতো ছিল। তবে তাদের গায়ের রং ছিল অস্বাভাবিক সবুজ রঙের।

Image credit: amarjan

তারা দুই ভাই বোন অজানা ভাষায় কথা বলতো, অদ্ভুত পোশাক পরিধান করতো এবং খাবার হিসেবে শুধু কাঁচা শিম খেতো। কিছুদিন পর অবশ্য তাদের মধ্যে ছেলেটি মারা যায় কিন্তু মেয়েটি বেঁচে ছিল। মেয়েটি পরবর্তীতে ইংরেজি ভাষা আয়ত্ত করেছিল এবং অন্যান্য খাবার খাওয়া শিখেছিল। ধীরে ধীরে মেয়েটি তার গায়ের সবুজ রং হারাতে শুরু করে। সে অন্যদের বলেছিল যে, তারা দুই ভাই বোন সেন্ট মার্টিন্স ল্যান্ড থেকে এসেছে।

তার ভাষ্য মতে, সেন্ট মার্টিন্স একটি ভূগর্ভস্থ এলাকা যেখানে সবাই সবুজ গাত্র বর্ণের অধিকারী। এই গল্পের ভিত্তি পরিষ্কার নয়। কেউ কেউ এটিকে নিছক পরীর গল্প মনে করেন। কেউ আবার মনে করেন সত্য গল্পের কিছুটা রদবদল হয়েছে। কেউ আবার এখনো মনে করেন তারা হয়তো আসলেই ভূগর্ভস্থ পৃথিবীর কোনো অশরীরী প্রাণী।

৫. দ্য ব্ল্যাক ডালিয়া মার্ডার


এলিজাবেথ শর্ট ১৯২৪ সালের ২৯ শে জুলাই আমেরিকান শহর বোস্টনে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি গ্রেট ডিপ্রেশনের সময়ে একটি শ্রমজীবী পাড়ায় বেড়ে ওঠেন এবং হলিউডের তারকা হওয়ার স্বপ্ন দেখেছিলেন।

এলিজাবেথ ১৯৪৩ সালে ক্যালিফোর্নিয়ায় আসেন এবং খুব শীঘ্রই বুঝতে পারেন চলচ্চিত্র শিল্পে প্রবেশ করা সহজ ব্যপার না। অর্থনৈতিক স্থিতিশীলতা ফিরে পেতে তিনি সংগ্রাম করেছেন। টিকে থাকার জন্য জায়গা ও পরিবর্তন করেছেন।

১৯৪৭ সালের ৯ জানুয়ারি তিনি তার প্রেমিকের সাথে লস এঞ্জেলেসে আসেন, যিনি তাকে বিল্টমোর হোটেলে ড্রপ করেন।

Image credit: Vizaca

এক সপ্তাহেরও কম সময় পরে, জনসাধারণের একজন সদস্য লস অ্যাঞ্জেলেসের রাস্তায় এলিজাবেথের বিকৃত লাশ আবিষ্কার করেন।

নগ্ন লাশের কোমর বিচ্ছিন্ন করা হয়েছিল, মুখের কোণ কাটা হয়েছিল। পুলিশ তদন্ত নিরর্থক প্রমাণিত হয়েছে, কারণ সেখানে কোনো আঙুলের ছাপ বা ক্লু ছিল না যা তাদের হত্যাকারীর কাছে নিয়ে যেতে পারে।

বছরের পর বছর পেরিয়ে গেলেও ডালিয়ার হত্যাকারীকে খুঁজে পাওয়া যায়নি। ডালিয়া কি কোনো পাগল লোকের হাতে খুন হয়েছিলেন নাকি তারই কোনো পরিচিত লোক তাকে হত্যা করেছে, তা আজো এক রহস্য।
এই ঘটনা নিয়ে ১৯৪৬ সালে একটি ক্রাইম থ্রিলার মুভি ও তৈরি হয়েছিল।

৬. দ্যতলোভ পাসের ঘটনা

১৯৫৯ সালে ৯ জন অভিজ্ঞ রাশিয়ান পর্বতারোহী ইউরাল পর্বতে নিঁখোজ হন। কয়েক মাস পর, তাদের মৃত দেহগুলো খুব অদ্ভুত অবস্থায় পাওয়া যায়। ৩ জন মাটিতে পড়েছিল এবং বাকিরা ১৫ ফুট বরফের নিচে।

তাদের একটি গর্তে পাওয়া যায় যেটি তারা নিজেদের জন্য খোদাই করেছিল। তাদের ত্বকে আঘাতের চিহ্ন ছিল সেই সাথে কিছু হাড় ভেঙে গিয়েছিল এবং কিছু অভ্যন্তরীণ আঘাতও ছিল।
কিছু লাশে কাপড় ছিল আবার কিছু সম্পূর্ণ নগ্ন। একজনের জিহ্বা এবং একজনের চোখ ছিল না। কেন এবং কিভাবে তাদের হ্ত্যা করা হয়েছিল সেটি আজও রহস্য।

৭. মেরিলিন মনরোর মৃত্যু

হলিউডের বিখ্যাত অভিনেত্রী মেরিলিন মনরোকে ১৯৬২ সালের ৪ঠা আগস্ট লস অ্যাঞ্জেলেসে তার বাড়িতে মৃত অবস্থায় পাওয়া যায়। পুলিশ রিপোর্ট অনুযায়ী, ছত্রিশ বছর বয়সী অভিনেত্রী ঘুমের ওষুধের অতিরিক্ত ডোজ নিয়ে আত্মহত্যা করেছিলেন। কিন্তু এটা এত সহজ ছিল না।

যারা ঘুমের ওষুধের মাত্রাতিরিক্ত সেবন করেন তাদের পেটের ভিতরে ক্যাপসুলগুলির অবশিষ্টাংশ থাকে, কিন্তু মেরিলিনের ক্ষেত্রে এটি ছিল না। এছাড়াও ইউনিস মারে, রাল্ফ গ্রিনসন এবং হাইম্যান এঙ্গেলবার্গ (যারা যথাক্রমে মেরিলিনের গৃহকর্মী, মনোরোগ বিশেষজ্ঞ এবং চিকিত্সক ছিলেন) এর সাক্ষ্যগুলি অদ্ভুতভাবে অসঙ্গত ছিল।

প্রকৃতপক্ষে, কেউ কেউ যুক্তি দিয়েছেন যে মেরিলিনের মৃত্যু একটি দুর্ঘটনাজনিত হত্যা, আত্মহত্যা নয়। যারা এই তত্ত্বের পক্ষে তারা বিশ্বাস করে যে গ্রিনসন এবং এঙ্গেলবার্গের মধ্যে যোগাযোগের অভাব ছিল, যার ফলে মারে মেরিলিনকে কিছু বিপজ্জনক ওষুধ দিয়েছিলেন।
নেম্বুটাল এবং ক্লোরাল হাইড্রেট উভয়ই মেরিলিনের সিস্টেমে পাওয়া গেছে। পরেরটি শরীরকে পূর্বের বিপাক থেকে বাধা দেয়, তাই তারা একটি মারাত্মক সংমিশ্রণ হতে পারে।

আরো পড়ুন   সবচেয়ে রহস্যময় মৃত্যু: খুন হয়েছিলেন নাকি আত্মহত্যা করেছিলেন?

ময়নাতদন্তে আরও জানা গেছে যে মেরিলিনের সিগমায়েড কোলন বিবর্ণ ছিল এবং এই বিবর্ণতা সম্ভবত একটি এনিমার কারণে হয়েছিল।
বহু বছর পরে, এঙ্গেলবার্গ এমনকি স্বীকার করেছেন যে তিনি মারা যাওয়ার আগের দিন মেরিলিনকে নেম্বুটালের জন্য একটি প্রেসক্রিপশন দিয়েছিলেন। মেরিলিনের মৃত্যুর রাতে, গ্রিনসন মারেকে এনিমার মাধ্যমে ক্লোরাল হাইড্রেট দিতে বলেছিলেন, অভিনেত্রী ইতিমধ্যে নেম্বুটাল গ্রহণ করেছিলেন তা অজান্তেই। তাদের ভুলের দ্বারা আতঙ্কিত, গ্রিনসন, এঙ্গেলবার্গ এবং মুরি মেরিলিনের মৃত্যুকে আত্মহত্যা হিসাবে সাজানোর সিদ্ধান্ত নেন।

যাইহোক, এটি জোর দেওয়া উচিত যে এই তত্ত্বটি কখনই নিশ্চিতভাবে প্রমাণিত হয়নি। কিন্তু উপরে উল্লিখিত প্রমাণগুলি ইঙ্গিত করে – অন্ততপক্ষে – যে সরকারী রায় ভুল ছিল।
মেরিলিনের মৃত্যু কি দুর্ঘটনা ছিল, নাকি সেই রাতে আরও ভয়ঙ্কর কিছু ঘটেছিল? দুঃখের বিষয়, আমরা কখনই সত্য জানতে পারব না।

৮. মালয়েশিয়া এয়ারলাইনস ফ্লাইট এমএইচ ৩৭০

সবচেয়ে সাম্প্রতিক নিখোঁজ রহস্যগুলোর মধ্যে একটি হলো মালয়েশিয়া এয়ারলাইন্স ফ্লাইট এমএইচ ৩৭০, যা শনিবার ৮ মার্চ, ২০১৪ তারিখে অদৃশ্য হয়ে গিয়েছিল। মালয়েশিয়ার থেকে বেইজিং পর্যন্ত একটি আন্তর্জাতিক ফ্লাইট ছিল এটি। ২২৭ জন যাত্রী এবং ১২ জন ক্রু সদস্যকে বহন করেছিল।

উড়োজাহাজটি বিমানের ট্রাফিক কন্ট্রোলের সাথে তার শেষ ভয়েস যোগাযোগটি করে টেক অফের এক ঘণ্টা এবং রাডারে পর্দা থেকে নিখোঁজ হয় কয়েক মিনিটের কম সময়ের মধ্যে। মালয়েশীয় সামরিক রাডারটি প্রায় এক ঘণ্টার পর বিমানটি ট্র্যাক করে, এটি তার উড়োজাহাজ থেকে বিচ্যুত হওয়ার পর থেকে আন্দামান সাগর পর্যন্ত রাডারের পরিসীমা বজায় রেখেছিল। বিমানটি অদৃশ্য হয়ে যাওয়ার আগে কোনো সংকটের সংকেত, খারাপ আবহাওয়ার সতর্কবাণী বা প্রযুক্তিগত – কোনো সমস্যার কথা বলা হয়নি।

অনেকেই এ সিদ্ধান্তে উপনীত হয়েছিলেন যে, ভারত মহাসাগরে এই ফ্লাইট শেষ হয়েছে এবং এখনও অনুসন্ধান চলছে, সেখানে কোনো ধ্বংসাবশেষ পাওয়া যায়নি।

৯. ডি.বি.কুপার

এক ব্যক্তি নিজেকে ড্যান কুপার দাবী করেন এবং ১৯৭১ সালের নভেম্বর মাসে নর্থ ওয়েস্ট এয়ারলাইন্সের ফ্লাইট ৩০৫ এ সিয়াটলের উদ্দেশ্যে যাত্রা করেন। প্লেনের শেষের সারিতে বসে একটি সিগারেট ধরেন। তিনি একটি বর্বোন এবং সোডা অর্ডার করেন। তার কিছুক্ষণ পর, একটি নোট ফ্লাইট অ্যাটেন্ডেন্সকে দেন। সেই নোটে তিনি বলেন – তার সাথে একটি বোমা আছে এবং তিনি তাকে তার পাশে বসতে বলেন।

যখন সে তার পাশে বসেন তখন কুপার তার ব্রিফকেস খুলে দেখান। একটি ব্যাটারী, কিছু লাল কাঠি এবং তার দেখিয়ে তিনি বলেন, আমি ২০০,০০০$ নগদ চাই বিকেল ৫:০০ টার মধ্যে। একটি ব্যাগে দুটি প্যারশুট চাই। এবং যখন আমরা ভূমিতে নামবো তখন এক ট্রাক তেল যেন তৈরি থাকে। ফ্লাইট অ্যাটেন্ডেন্স প্লেনের চালককে কুপারের কথা বলেন। সিয়াটলে নামার পর যাত্রীদের ছেড়ে দেয়া হয় এবং যাবতীয় অর্থ এবং প্যারাশুট বিমানে আনা হয়।

Image credit: The New York Times

কুপারের নির্দেশে বিমানটি নিউ মেক্সিকোর দিকে যেতে থাকে। প্লেনটির ১০,০০০ মিটারের বেশি উচ্চতায় যাবার পর কুপার নগদ অর্থ সহ এবং প্যারাশুট বেঁধে পিছনের সিট থেকে লাফ দেয়। এরপর অনেকেই নিজেকে কুপার দাবী করেন কিন্তু কোনো উপযুক্ত প্রমাণ দিতে পারেননি। এ গল্পটি এত বিখ্যাত ছিল যে, কুপার কমিক সিরিজের বিষয় হয়ে দাড়িয়েছিল।

১০. পোলক টুইনস

১৯৫৭ সালে, দুই বোন, জোয়ানা (১১) এবং জ্যাকলিন (৬) সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত হন। এক বছর পর, তাদের মা জমজ সন্তানের জন্ম দেন একজন জেনিফার ও গিলিয়ান। তারপর তিনি একটি অদ্ভুত ব্যাপার লক্ষ্য করেন। জেনিফারের দেহে জন্ম চিহ্ন ছিল যা জ্যাকলিনের মতোই।

Image credit: pintarest

তাদের মা তাদের নিয়ে একটি গেম খেলেন। যেখানে জেনিফার এবং গিলিয়ান, জোয়ানা এবং জ্যাকলিন যেভাবে মারা যায় তারা ঠিক সেই দৃশ্যের মতোই খেলছিল। কিন্তু আশ্চর্যের বিষয় হলো বাবা মা কখনোই মেয়েদের সাথে দুর্ঘটনা নিয়ে আলোচনা করেননি।

ঘটনা শুনে মনোবিজ্ঞানী ডাঃ ইয়ান স্টিভেনসন এই সিদ্ধান্তে উপনীত হন যে, সম্ভবত এই যমজ তাদের বোনদের পুনরুত্থান ছিল।