হুমায়ুন আজাদ উক্তি | হুমায়ুন আজাদ এর ১০০ টি বিখ্যাত উক্তি

হুমায়ুন আজাদ (২৮ এপ্রিল ১৯৪৭ – ১২ আগস্ট ২০০৪ খ্রিষ্টাব্দ; ১৪ বৈশাখ ১৩৫৪ – ২৬ শ্রাবণ ১৪১১ বঙ্গাব্দ) একজন বাংলাদেশি কবি, ঔপন্যাসিক, ভাষাবিজ্ঞানী, সমালোচক, রাজনীতিক ভাষ্যকার, কিশোরসাহিত্যিক, গবেষক, এবং অধ্যাপক ছিলেন। তিনি বাংলাদেশের অন্যতম প্রথাবিরোধী এবং বহুমাত্রিক লেখক যিনি ধর্ম, মৌলবাদ, প্রতিষ্ঠান ও সংস্কারবিরোধিতা, যৌনতা, নারীবাদ ও রাজনীতি বিষয়ে তার বক্তব্যের জন্য ১৯৮০-এর দশক থেকে পাঠকগোষ্ঠীর দৃষ্টি আর্কষণ করতে সক্ষম হয়েছিলেন। হুমায়ুন আজাদের ৭টি কাব্যগ্রন্থ, ১২টি উপন্যাস ও ২২টি সমালোচনা গ্রন্থ, ৭টি ভাষাবিজ্ঞানবিষয়ক, ৮টি কিশোরসাহিত্য ও অন্যান্য প্রবন্ধসংকলন মিলিয়ে ৬০টিরও অধিক গ্রন্থ তার জীবদ্দশায় এবং মৃত্যু পরবর্তী সময়ে প্রকাশিত হয়। ১৯৯২ সালে তার নারীবাদী গবেষণা-সংকলনমূলক গ্রন্থ নারী প্রকাশের পর বিতর্কের সৃষ্টি করে এবং ১৯৯৫ থেকে ২০০০ সাল পর্যন্ত সাড়ে চার বছর ধরে বইটি বাংলাদেশ সরকার কর্তৃক নিষিদ্ধ ছিল। এটি তার বহুল আলোচিত গবেষণামূলক কাজ হিসাবেও স্বীকৃত। এছাড়াও তার পাক সার জমিন সাদ বাদ উপন্যাসটি পাঠকমহলে বিতর্কের সৃষ্টি করেছিল। তার রচিত প্রবচন সংকলন ১৯৯২ সালে হুমায়ুন আজাদের প্রবচনগুচ্ছ নামে প্রকাশিত হয়। তাকে ১৯৮৬ সালে বাংলা একাডেমি পুরস্কার এবং ২০১২ সালে সামগ্রিক সাহিত্যকর্ম এবং ভাষাবিজ্ঞানে বিশেষ অবদানের জন্য মরণোত্তর একুশে পদক প্রদান করা হয়। ২০০৩ সালে তার রচিত কিশোরসাহিত্য ফুলের গন্ধে ঘুম আসে না (১৯৮৫) এবং আব্বুকে মনে পড়ে (১৯৯২) জাপানি ভাষায় অনূদিত হয়েছিলো।



বাঙালি যখন সত্য কথা বলে তখন বুঝতে হবে পেছনে কোনো অসৎ উদ্দেশ্য আছে।

— হুমায়ুন আজাদ



কারো প্রতি শ্রদ্ধা অটুট রাখার উপায় হচ্ছে তার সাথে কখনো সাক্ষাৎ না করা।
— হুমায়ুন আজাদ



“জীবনে সফল হওয়ার চেয়ে সুখী হওয়া ভালো।”
–হুমায়ুন আজাদ



আর পঞ্চাশ বছর পর আমাকেও ওরা দেবতা বানাবে; আর আমার বিরুদ্ধে কোনো নতুন প্রতিভা কথা বললে ওরা তাকে ফাঁসিতে ঝুলোবে।
— হুমায়ুন আজাদ



মানুষের ওপর বিশ্বাস হারানো পাপ, তবে বাঙালির ওপর বিশ্বাস রাখা বিপজ্জনক।

— হুমায়ুন আজাদ



আমাদের অঞ্চলে সৌন্দর্য অশ্লীল, অসৌন্দর্য শ্লীল। রূপসীর একটু নগ্ন বাহু দেখে ওরা হইচই করে, কিন্তু পথে পথে ভিখিরিনীর উলঙ্গ দেহ দেখে ওরা একটুও বিচলিত হয় না।
– হুমায়ুন আজাদ



উন্নতি হচ্ছে ওপরের দিকে পতন। অনেকেরেই আজকাল ওপরের দিকে পতন ঘটছে।

– হুমায়ুন আজাদ


এখানে অসতেরা জনপ্রিয়, সৎ মানুষেরা আক্রান্ত।

– হুমায়ুন আজাদ




“বিপ্লবীদের বেশি দিন বাঁচা ঠিক নয়। বেশি বাঁচলেই তারা প্রতিক্রিয়াশীল হয়ে ওঠে।” – হুমায়ুন আজাদ

১০

“পৃথিবীতে যতোদিন অন্তত একজনও প্রথাবিরোধী মানুষ থাকবে, ততো দিন পৃথিবী মানুষের।” – হুমায়ুন আজাদ

১১

“একটি আমলা আর মন্ত্রীর সাথে পাঁচ মিনিট কাটানোর পর জীবনের প্রতি ঘেন্না ধ’রে গেলো; তারপর একটি চড়ুইয়ের সাথে দু-মুহুর্ত কাটিয়ে জীবনকে আবার ভালোবাসলাম।”

– হুমায়ুন আজাদ

১২

পুরুষতান্ত্রিক সভ্যতার শ্রেষ্ঠ শহীদের নাম মা।
– হুমায়ুন আজাদ


১৩

কবিরা বাঙলায় বস্তিতে থাকে, সিনেমার সুদর্শন গর্দভেরা থাকে শীতাতপনিয়ন্ত্রিত প্রাসাদে।

— হুমায়ুন আজাদ

১৪

যে বালিকাটি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বেরিয়ে কোন কাজে যায় না, ব্যবহৃত হয় কারও বিনোদন সামগ্রী রুপে এবং তাতে ধন্য বোধ করে। তার থেকে ঐ নিরক্ষর, বিপন্ন, আবেদনহীন গার্মেন্টস কর্মী বালিকাটি অনেক প্রগতিশীল ও শ্রদ্ধেয়।
–– হুমায়ুন আজাদ


১৫

মানুষ ও কবিতা অবিচ্ছেদ্য। মানুষ থাকলে বুঝতে হবে কবিতা আছে : কবিতা থাকলে বুঝতে হবে মানুষ আছে।

—হুমায়ুন আজাদ

১৬

পুরুষ নারীকে বলেছে দেবী, শাশ্বতী, কল্যাণী গৃহলক্ষ্মী, অর্ধেক কল্পনা; কিন্তু চেয়েছে চিরন্তনী দাসী হিসাবে।

— হুমায়ুন আজাদ

১৭

বাঙলাদেশে কয়েকটি নতুন শাস্ত্রের উদ্ভব ঘটেছে; এগুলো হচ্ছে স্তুতিবিজ্ঞান, স্তব সাহিত্য, সুবিধা দর্শন ও নমস্কারতত্ত্ব।

—- হুমায়ুন আজাদ

১৮

কোন বাঙালি আজ পর্যন্ত আত্মজীবনী লেখে নি, কেননা আত্মজীবনী লেখার জন্যে দরকার সততা। বাঙালির আত্মজীবনী হচ্ছে শয়তানের লেখা ফেরেশতার আত্মজীবনী।

— হুমায়ুন আজাদ

১৯

মানুষের তুলনায় আর সবই ক্ষুদ্র : আকাশ তার পায়ের নিচে,চাঁদ তার এক পদক্ষেপের দূরত্বে, মহাজগত তার নিজের বাড়ি।

— হুমায়ুন আজাদ

২০

দ্বিতীয়, তৃতীয়, চতুর্থ, পঞ্চম প্রেম বলে কিছু নেই। মানুষ যখন প্রেমে পড়ে, তখন প্রতিটি প্রেমই প্রথম প্রেম।’

– হুমায়ুন আজাদ

২১

বাঞ্ছিতদের সাথে সময় কাটাতে চাইলে বই খুলুন, অবাঞ্ছিতদের সাথে সময় কাটাতে চাইলে টেলিভিশন খুলুন।

— হুমায়ুন আজাদ

২২

ক্ষুধা ও সৌন্দর্যবোধের মধ্যে গভীরসম্পর্ক রয়েছে। যে-সব দেশে অধিকাংশ মানুষঅনাহারী, সেখানে মাংসল হওয়া রূপসীর লক্ষণ; যে-সবদেশে প্রচুর খাদ্য আছে, সেখানে মেদহীন হওয়া রূপসীর লক্ষণ। এজন্যেই হিন্দি আর বাঙলা ফিল্মের নায়িকাদের দেহ থেকে মাংস চর্বি উপচে পড়ে। ক্ষুধার্ত দর্শকেরা সিনামা দেখে না, মাংস ও চর্বি খেয়ে ক্ষুধা নিবৃত্ত করে।

— হুমায়ুন আজাদ


২৩

“যে দেশে বাকস্বাধীনতা নেই, চিনটার স্বাধীনতা নেই, অধিকার নেই, যেখানে কয়েকটি দুর্বত্ত সর্বশক্তিমান, সেখানে উৎকৃষ্ট প্রতিভা জন্ম নেওয়া দূরের কথা, একটি ভালো চর্মকারও জন্ম নিতে পারে না।”- হুমায়ুন আজাদ।


২৪

জন্মের আগে যেমন শূন্য ছিলাম,মরে যাওয়ার পর আমার কাছে আমি সম্পূর্ণ শূন্য হয়ে যাব।আমার সূচনার আগের অধ্যায় অন্ধকার,সমাপ্তির পরের পরিচ্ছদও অন্ধকার।দুই অন্ধকারের মধ্যে ক্ষণিক আলোর ঝিলিক আমি।এই ঝিলিকটুকু আমার ভাল লাগে।

——— হুমায়ুন আজাদ ———-


২৫

“এক সময় বিত্তশালীরা কুকুর পোষতো, এখন মিডিয়া পোষে।”
– ড. হুমায়ুন আজাদ

২৬

বিশ্বের নারী নেতারা নারীদের প্রতিনিধি নয়; তারা সবাই রুগ্ন পিতৃতন্ত্রের প্রিয় সেবাদাসী।
– হুমায়ুন আজাদ

২৭

আমি এতো শক্তিমান আগে জানা ছিলনা। আজকাল মিত্র নয়, শত্রুদের সংখ্যা দেখে আত্মবিশ্বাস ফিরে পাই।

— ডঃ হুমায়ুন আজাদ


২৮

ব্যর্থরাই প্রকৃত মানুষ, সফলেরা শয়তান।

— হুমায়ুন আজাদ

২৯

প্রাক্তন বিদ্রোহীদের কবরে যখন স্মৃতিসৌধ মাথা তোলে, নতুন বিদ্রোহীরা তখন কারাগারে ঢোকে, ফাসিঁকাঠে ঝোলে।

– হুমায়ুন আজাদ

৩০

বুদ্ধিজীবী সাবধানে পাহারা দেয় নিজেকে, যাতে তার মুখ আর কলম থেকে এমন কিছু না বেরােয়, তাকে বিতর্কের আগুনে জ্বালিয়ে পুড়িয়ে মারবে।

– হুমায়ুন আজাদ

৩১

টেলিভিশন, নিকৃষ্ট জিনিশের একনম্বর পৃষ্ঠপোষক, হিরোইন প্যাথেডিনের থেকেও মারাত্মক। মাদক গোপনে নষ্ট করে কিছু মানুষকে, টেলিভিশন প্রকাশ্যে নষ্ট করে কোটি কোটি মানুষকে।

– হুমায়ুন আজাদ

৩১

“প্রতিবাদে আমাদের কোনো সরকারই বিচলিত হয় না, অটলতায় তারা অদ্বিতীয়।”

‘নারী’- হুমায়ুন আজাদ

৩৩

“এক উগ্র পিতৃতন্ত্রের মধ্যে বাস করি আমরা, যেখানে নারী অতিনিষিদ্ধ, নারীর অধিকার দাবি যেখানে দ্রোহিতা, নারী যেখানে দাসী ও ভোগ্যসামগ্রী।”

(নারী)- ডঃ হুমায়ুন আজাদ

৩৪

“জন্মের পরে মানুষকে আবার জন্ম দেয়া হয়; মানুষমাত্রই দ্বিজ। জন্মের পর থেকে শুরু হয় পুত্রকে পুরুষ আর কন্যাকে নারীরুপে দ্বিতীয় জন্ম দেয়া।”

নারী– ডঃ হুমায়ুন আজাদ

৩৫

“ছেলেটি তার বিছানা গুছিয়ে না রাখলে মা খুশি হয়, দেখতে পায় একটি পুরুষের জন্ম হচ্ছে; কিন্তু মেয়েটি বিছানা না গোছালে একটি নারীর মৃত্যু দেখে মা আতংকিত হয়ে পড়ে.”

নারী- ডঃ হুমায়ুন আজাদ

৩৬

মুসলমানকে বিশ্ববিদ্যালয়ে মানায় না, মানায় মাদ্রাসায়, যেখানে দেড় হাজার বছর ধ’রে সব কিছু মুখস্থ ক’রে ফেললেও জ্ঞানের জ-ও জন্মে না।

– হুমায়ুন আজাদ

৩৭

“কোনো পেশায় না থাকাই হচ্ছে গৃহিনীর পেশায় থাকা; বিবাহিত যে-নারী আর কিছু নয়, যে কোনো আর্থযোগ্যতা অর্জন করে নি, সে-ই গৃহিনী।”

নারী – ডঃ হুমায়ুন আজাদ

৩৮

“কেউ বিএ পাশ ক’রে যদি বাসায় ব’সে থাকে, বা হয় সুগৃহিনী বা সুমাতা, তবে তা হচ্ছে শিক্ষার অপচয়, এবং ক্ষতিকর।”

নারী– ডঃ হুমায়ুন আজাদ

৩৯

বাঙালি গুছিয়ে কথা বলে না; এক কথা বারবার বলে; কথায় কথায় অতিশয়োক্তি প্রয়োগ করে। সাধারণ মানুষের বাক্যের ভান্ডার বেশ সীমাবদ্ধ; কিন্তু তারা ওই সীমাবদ্ধ ভান্ডারকে বারবার ব্যবহার করে প্রায় অসীম ক’রে তোলে। বাঙালি মনে করে এক কথা বারবার বললে তা গ্রহণযোগ্য হয়, তাতে ফল ফলে। এটা হয়তো মিথ্যে নয়, কিন্তু এতে কথার তাৎপর্য কমে, মূল্য বাড়ে পৌনপুনিকতার। সাধারণ মানুষকে যদি ছেড়ে দিই, ধরি যদি মঞ্চের মানুষদের, বিচিত্র কথা বলা যাদের পেশা, তারাও একই কথা বারবার বলে। বাঙালি নতুনত্ব চায় না, বিশ্বাস করে পুনরাবৃত্তিতে। পুনরাবৃত্তিতে বাঙালির প্রতিভা কি তুলনাহীন? বাঙালির স্বভাবে রয়েছে অতিশয়োক্তি, সে কোনো আবেগ ও সত্য প্রকাশ করতে পারে না অতিশয়োক্তি ছাড়া। অতিশয়োক্তি ভাষাকে জীর্ণ করে, নিরর্থক করে, যার পরিচয় পাওয়া যায় বাঙালির ভাষিক আচরণে ও লিপিবদ্ধ ভাষায়।

— হুমায়ুন আজাদ


৪০

ধর্মানুভূতি কোনো নীরিহ ব্যাপার নয়, তা বেশ উগ্র; এবং এর শিকার অসৎ কপট দুর্নীতিপরায়ণ মানুষেরা নয়, এর শিকার সৎ ও জ্ঞানীরা; এর শিকার হচ্ছে জ্ঞান। জ্ঞানের সাথে ধর্মের বিরোধ চলছে কয়েক সহস্রক ধ’রে, উৎপীড়িত হ’তে হ’তে জয়ী হচ্ছে জ্ঞান, বদলে দিচ্ছে পৃথিবীকে; তবু আজো পৗরাণিক বিশ্বাসগুলো আধিপত্য করছে, পীড়ন ক’রে চলছে জ্ঞানকে। ধর্মানুভূতির আধিপত্যের জন্যে কোনো গুণ বা যুক্তির দরকার পড়ে না, প্রথা ও পুরোনো বই যোগায় তার শক্তি, আর ওই শক্তিকে সে প্রয়োগ করতে পারে নিরঙ্কুশভাবে।

— হুমায়ুন আজাদ


৪১

মসজিদ ভাঙে ধার্মিকেরা, মন্দির ভাঙে ধার্মিকেরা, তারপরও তারা দাবি করে তারা ধার্মিক, আর যারা ভাঙাভাঙিতে নেই তারা অধার্মিক বা নাস্তিক।

— হুমায়ুন আজাদ

৪২

“রবীন্দ্রনাথ- যাঁকে বাতিলের চেষ্টা করে আসছে নষ্টরা পবিত্র পাকিস্তানের কাল থেকে; পেরে ওঠে নি। এমনই প্রতিভা ঐ কবির, তাঁকে বেতার থেকে বাদ দিলে তিনি জাতির হৃদয় জুড়ে বাজেন; তাঁকে পাঠ্যপুস্তক থেকে বাদ দিলে তিনি জাতির হৃদয়ের কাব্যগ্রন্থে মুদ্রিত হয়ে যান, তাঁকে বঙ্গভবন থেকে বাদ দেওয়া হলে তিনি সমগ্র বঙ্গদেশ দখল করেন; তাঁর একটি সঙ্গীত নিষিদ্ধ হলে তিনি জাতীয় সঙ্গীত হয়ে ওঠেন।
প্রতিক্রিয়াশীল নষ্টরা অনেক লড়াই করেছে তাঁর সাথে, পেরে ওঠে নি; তাঁকে মাটি থেকে বহিষ্কার করা হলে তিনি আকাশ হয়ে ওঠেন; জীবন থেকে তাঁকে নির্বাসিত করা হলে তিনি রাজত্ব প্রতিষ্ঠা করেন জাতির স্বপ্নালোকে। নষ্টরা তাকে মুছে ফেলার চেষ্টা করেছে আপ্রাণ। যদিও তিনি জাতীয় সঙ্গীতের রচয়িতা,তবুও তিনি জাতীয় কবি নন। তাঁর নামে ঢাকায় একটি রাস্তাও নেই; সংস্থা তো নেই। তাতে কিছু যায় আসে নি তাঁর; দশকে দশকে বহু একনায়ক মিশে যাবে মাটিতে। তিনি বেঁচে থাকবেন বাঙলায় ও বিশ্বে।”

– ড. হুমায়ুন আজাদ

৪৩

আমার লেখার যে অংশটুকু পাঠককে তৃপ্তি দেয়, সেটুকু বর্তমানের জন্য;
আর যে অংশ তাদের ক্ষুব্ধ করে, সেটুকু ভবিষ্যতের জন্য।

– হুমায়ুন আজাদ

৪৪

“শিশুও সাপ চেনে বাঙালিরও চেনার কথা জামাতকে; কিন্তু বাঙালি মনে হয় শিশুর চেয়েও নির্বোধ। গোখরোর কামড় খেয়েও বাঙালি চেনে না সাপ কাকে বলে। বাঙলাদেশ ও তার বিভ্রান্ত রাজনীতি দুধকলা দিয়ে পুষে আসছে কালোজাতিকে যার ছোবলে একদিন সম্পূর্ণ নীল হয়ে যেতে হবে বাঙালি জাতিটিকে।”

–অধ্যাপক হুমায়ুন আজাদ

৪৫

“বাঙলাদেশে মাস্তান ছাড়া সবাই অসহায়; তাই বাঙলাদেশ হয়ে উঠেছে ধর্ষণের লীলাভূমি।”
– হুমায়ুন আজাদ।

৪৬

আমাদের সংস্কৃতির যে অংশ পশ্চিম থেকে যতো কম নিয়েছে, সে অংশ ততো গরীব। যেমন নৃত্য : সামাজিক কারণে বেশী নিতে পারে নি বলে আমাদের তরুনীরা আজো কোমর দুলিয়ে নেচে চলেছে হাজার বছরের পুরোনো কলসি নাচ।

-হুমায়ুন আজাদ।


৪৭

“এক বড় অশুভ সময় এসেছে পৃথিবীতে,যারা অন্ধ তারা সবচেয়ে বেশি দেখতে তো পাচ্ছেই ,তারা অত্যন্ত বেশি বিশ্বাস করছে,এবং পৃথিবী জুড়ে ছড়িয়ে দিচ্ছে বিশ্বাসের মহামারী।এখন সবাই বিশ্বাস করছে, সবাই বিশ্বাসী,কারো পক্ষে এখন বলা সম্ভব হচ্ছেনা আমি বিশ্বাস করিনা,আমি অবিশ্বাস করি।বিজ্ঞানের এই অসাধারণ যুগে যখন কিছু অবিশ্বাসী সৌরলোক পেরিয়ে ঢুকতে চাচ্ছে মহাবিশ্বে,তখন পৃথিবী মেতে উঠেছে মধ্যযুগীয় বিশ্বাসে।”

আমার অবিশ্বাস- হুমায়ুন আজাদ



৪৮

“কাজী নজরুল ইসলাম এখন রাষ্ট্রধর্মী বাঙলাদেশের জাতীয় কবি, খাঁটি ইসলামী কবি। এক সময় ফতোয়াবাজদের জ্বালায় তিনি অস্থির ছিলেন। আর এখন যদি কবিতা লিখতেন, তবে আজ যারা তাকে জাতীয় কবি বানিয়েছে, তারাই তাঁকে কাফের বলে তার শির ছিঁড়তো।”

– হুমায়ুন আজাদ


৪৯

জীবিত কাজী নজরুল ইসলামকে ‘কাফের-নাস্তিক-মুরতাদ’ খেতাব দিয়েছিল সমকালীন মোল্লা-মৌলভিরা; অর্ধমৃত নজরুলকে বাঙলাদেশ দিয়েছে নাগরিকত্ব, বানিয়েছে ‘জাতীয় কবি’। বাঙালি মুসলমান জীবিত প্রতিভাকে লাশে পরিণত করে, আর মৃত প্রতিভার কবরে আগরবাতি জ্বালে’।

– হুমায়ুন আজাদ

৫০

মানুষের ওপর বিশ্বাস হারানো পাপ, তবে বাঙালির ওপর বিশ্বাস রাখা বিপজ্জনক।

— হুমায়ুন আজাদ

আরো পড়ুন   স্বামী বিবেকানন্দের বাণী: ১০০ টি বিখ্যাত বাণী

৫১

বাঙালি যা বিশ্বাস করে, মুখে তা প্রকাশ করে না; বাঙালি যা প্রকাশ করে, আচরণে তা পালন করে না; বাঙালি পেছনে যার নিন্দা করে, মুখােমুখি তার তোষামোদ করে- যদি সে শক্তিমান হয় । শক্তি বাঙালির জীবনের বড়ো নিয়ন্ত্রক;- বাঙালি শক্তিমানের পদানত হয় নির্দ্বিধায়, আর দুর্বলকে পীড়ন করে অবলীলায় । বাঙালি শক্তিমানের কোনো ত্রুটি দেখে না, শক্তিমানের সমস্ত অন্যায়কে মেনে নেয়, বাঙালির চোখে শক্তিমান কখনো চরিত্রহীন নয়, শক্তিমানের চরিত্র থাকার কোনো দরকার আছে ব’লেও মনে করে না বাঙালি; কিন্তু চরিত্রবান হওয়া দুর্বলের জন্যে বিধিবদ্ধ । বাঙালি খুবই পরনিন্দা করে, পিতার নিন্দা করতেও কুন্ঠিত হয় না; তবে বাঙালির চোখে সামাজিকভাবে কেউ নিন্দিত নয়, যদি সে শক্তিমান হয় । নিন্দিত কন্ঠে মালা পরাতে বাঙালি লজ্জিত হয় না, গর্ব বোধ করে; নিন্দিত শক্তিমানকে নিমন্ত্রণ ক’রে ধন্য বোধ করে বাঙালি । বাঙালি, অশেষ ভন্ডামোর সমষ্টি, শক্তিকেই মনে করে বিধাতা ।
___________________________
বাঙালি : একটি রুগ্ন জনগোষ্ঠি!
হুমায়ুন আজাদ


৫২

“এখনো বিষের পেয়ালা ঠোঁটের সামনে তুলে ধরা হয় নি, তুমি কথা বলো।”

– হুমায়ুন আজাদ


৫৩

এ-বদ্বীপে দালালি ছাড়া ফুলও ফোটে না, মেঘও নামে না। – হুমায়ুন আজাদ।


৫৪

শিক্ষকের জীবনের থেকে চোর, চোরাচালানি, দারোগার জীবন অনেক আকর্ষণীয়। এ সমাজ শিক্ষক চায় না, চোর- চোরাচালানি-দারোগা চায়।

— হুমায়ুন আজাদ


৫৫

মানুষের শুধু একটি এলাকাই আছে, যেখানে যুক্তি চলে না; সেটি খুবই ভিন্ন রকম এলাকা, সেখানকার সব সত্য লাভ করা যায় অযুক্তি আর অন্ধ বিশ্বাস দিয়ে। মানুষের এই অন্ধ বিশ্বাসই অভিহিত হয়ে থাকে ধর্মানুভূতি নামে।

— হুমায়ুন আজাদ


৫৬

পৃথিবীতে যতোদিন অন্তত একজনও প্রথাবিরোধী মানুষ বেঁচে থাকবে, ততোদিন পৃথিবী মানুষের।’

— হুমায়ুন আজাদ


৫৭

‘বাঙলাদেশে ভিখারীরাও দুর্নীতিগ্রস্ত।’

-হুমায়ুন আজাদ

৫৮

বেতন বাঙলাদেশে এক রাষ্ট্রীয় প্রতারণা। এক মাস খাটিয়ে এখানে পাঁচ দিনের পারিশ্রমিক দেয়া হয়।

— হুমায়ুন আজাদ

৫৯

বাঙালি তার এলাকার সকলের সমস্ত খবর রাখে, খারাপ খবরগুলো মুখস্থ রাখে; এবং যদি কারো কোনো খারাপ খবর না থাকে, তবে বাঙালি একটা খারাপ খবর তৈরি করে।

— হুমায়ুন আজাদ

৬০

বাঙালি অন্যের ব্যক্তিগত জীবন বিশ্বাস করে না। বাঙালি অন্যের একান্ত বা ব্যক্তিগত কিছু সহ্য করে না। তাই বাঙালির ব্যক্তিগত কোনো জীবন নেই। বাঙালি প্রতিবেশীর ঘরবাড়ির উপর বিনিদ্র চোখ রাখে, ওই বাড়িতে কে বা কারা আসে, কখন আসে ও যায়, সব সংবাদ রাখে, এবং সংবাদ বানায়।

— হুমায়ুন আজাদে

৬১

বাঙালি কারো সাথে দেখা করতে এলে দরোজায় কড়া নাড়ে, ডাকে, সাড়া না পেলে পাড়া মাতিয়ে তোলে, এমন কি দরোজা ভেঙে ঘরে ঢোকার উপক্রম করে।

— হুমায়ুন আজাদ


৬২

বাঙালি কুৎসা রটিয়ে সুখ পায়, আর এ- কুৎসা যদি যৌন হয়, তাহলে তা সর্বশ্রেষ্ঠ।

— হুমায়ুন আজাদ

৬৩

পা, বাঙলাদেশে, মাথার থেকে অনেক বেশি গুরুত্বপূর্ণ। পদোন্নতির জন্যে এখানে সবাই ব্যগ্র। কিন্তু মাথার যে অবনতি ঘটছে, তাতে কারো কোনো উদ্বেগ নেই।

— হুমায়ুন আজাদ

৬৪

“আমাকে অনেকেই বলতো যে, আপনি খুব সাহসী; কিন্তু আমি বলতাম যে, আমি কখনোই সাহসী নই। আমি আঠারো তলা দালান থেকে লাফ দেই না, আমি বন্দুকের গুলির মুখে গিয়ে দাঁড়াই না। আমি সত্য প্রকাশ করি, যেদেশে সত্য প্রকাশ করাই সাহসের পরিচায়ক, সে দেশ যে কী শোচনীয় পর্যায়ে নেমে গেছে সেটা আমাদের বোঝা উচিত।”

– হুমায়ুন আজাদ

৬৫

“বাঙালি আন্দোলন করে সাধারনত ব্যর্থ হয়। কখনো কখনো তারা সফল হয়। তবে সফল হবার পর বাঙালি ভুলে যায় কেনো তারা আন্দোলন করেছিলো।”

— হুমায়ুন আজাদ

৬৬

বাঙালি একটি নিন্দাকেই বড় নিন্দা মনে করে, তা হচ্ছে লাম্পট্য নিন্দা। কোনো পুরুষকে লম্পট আর নারীকে ভ্রষ্টা হিসেবে চিহ্নিত করে দিতে পারলে বাঙালি জীবন সার্থক বলে মনে করে।

— হুমায়ুন আজাদ

৬৭

বাঙলার প্রতিটি ক্ষমতাধিকারী দল সংখ্যাগরিষ্ঠ দুর্বৃত্তদের সংঘ।

–হুমায়ুন আজাদ

৬৮

“বাঙালি আন্দোলন করে সাধারনত ব্যর্থ হয়। কখনো কখনো তারা সফল হয়। তবে সফল হবার পর বাঙালি ভুলে যায় কেনো তারা আন্দোলন করেছিলো।”
— হুমায়ুন আজাদ

৬৯

একজন চাষী বা নদীর মাঝি সাংস্কৃতিকভাবে যতোটা মূল্যবান, সারা সচিবালয় ও মন্ত্রীপরিষদও ততোটা মূল্যবান নয়।

—-হুমায়ুন আজাদ

৭০

নিন্দুকেরা পুরোপুরি অসৎ হ’তে পারেন না, কিছুটা সততা তাঁদের পেশার জন্যে অপরিহার্য; কিন্তু প্রশংসাকারীদের পেশার জন্যে মিথ্যাচারই যথেষ্ট।

— হুমায়ুন আজাদ

আরো পড়ুন   আব্রাহাম লিংকন এর উক্তি | ১৫ টি বিখ্যাত উক্তি

৭১

নারী সম্পর্কে আমি একটি বই লিখছি; কয়েকজন মহিলা আমাকে বললেন, অধ্যাপক হয়ে আমার এ-বিষয়ে বই লেখা ঠিক হচ্ছে না। আমি জানতে চাইলাম, কেনো ? তাঁরা বললেন, বিষয়টি অশ্লীল !

— হুমায়ুন আজাদ

৭২

“সবাই যীশু হতে চায়, শুধু ক্রুশবিদ্ধ হতে ভয় পায়।”

—–হুমায়ুন আজাদ

৭৩

বাকস্বাধীনতার মূলকথা হচ্ছে, আপনি যা শুনতে চান না, আমার তা বলার অধিকার।
–- হুমায়ুন আজাদ

৭৪

এদেশে সবাই শিক্ষানুরাগী ও সমাজসেবক : দারোগার শোকসংবাদেও লেখা হয়, ‘তিনি শিক্ষানুরাগী ও সমাজসেবক ছিলেন!

— হুমায়ুন আজাদ

৭৫

হায় ! থাকতো যদি একটি লম্বা পাঞ্জাবি, আমিও খ্যাতি পেতাম মহাপণ্ডিতের।

— হুমায়ুন আজাদ

৭৬

এখানকার একাডেমিগুলো সব ক্লান্ত গর্দভ; মুলো খাওয়া ছাড়া ওগুলোর পক্ষে আর কিছু অসম্ভব।

— হুমায়ুন আজাদ


৭৭

তোমার যে ঠোঁটে চুমো খেয়েছিলো উদ্যমপরায়ণ এক প্রাক্তন প্রেমিক,
আমাকে ভালবাসার পর সেই নষ্ট ঠোঁট খঁসে প’ড়ে
সেখানে ফুটবে এক অনিন্দ্য গোলাপ।

—–© হুমায়ুন আজাদ


৭৮

এ-বদ্বীপে দালালি ছাড়া ফুলও ফোটে না, মেঘও নামে না।
– হুমায়ুন আজাদ


৭৯

আমাদের সমাজ যাকে কোনো মূল্য দেয় না, প্রকাশ্যে তার অকুণ্ঠ প্রশংসা করে, আর যাকে মূল্য দেয় প্রকাশ্যে তার নিন্দা করে। শিক্ষকের কোনো মূল্য নেই, তাই তার প্রশংসায় সমাজ পঞ্চমুখ; চোর, দারোগা, কালোবাজারি সমাজে অত্যন্ত মূল্যবান, তাই প্রকাশ্যে সবাই তাদের নিন্দা
করে।

— হুমায়ুন আজাদ


৮০

বাঙালি একশো ভাগ সৎ হবে, এমন আশা করা অন্যায়। পঞ্চাশ ভাগ সৎ হলেই বাঙালিকে পুরস্কার দেওয়া উচিত।

— হুমায়ুন আজাদ

৮১

অধিকাংশ সুদর্শন পুরুষই আসলে সুদর্শন গর্দভ; তাদের সাথে সহবাসে একটি দুষ্প্রাপ্য প্রাণীর সাথে সহবাসের অভিজ্ঞতা হয়।

— হুমায়ুন আজাদ


৮২

আজকালকার আধিকাংশ পি এইচ ডি অভিসন্দর্ভই মনে আশার আলো জ্বালায়; মনে হয় এখানেই নিহিত আমাদের শিক্ষাসমস্যা সমাধানের বীজ। প্রথম বর্ষ অনার্স শ্রেণীতেই এখন পি এইচ ডি কোর্স চালু করা সম্ভব, এতে ছাত্ররা আড়াই বছরে একটি ডক্টরেট ডিগ্রি পেতে পারে। এখানকার অধিকাংশ ডক্টরেটই স্নাতকপূর্ব ডক্টরেট; অদূর ভবিষ্যতে উচ্চ-মাধ্যমিক ডক্টরেটও পাওয়া যাবে।

— হুমায়ুন আজাদ

৮৩

“বুদ্ধিজীবীরা এখন বিভক্ত তিন গোত্রে- ভণ্ড, ভণ্ডতর, ভণ্ডতম।”

– হুমায়ুন আজাদ

৮৪

পাকিস্থানের ইতিহাস ঘাতক আর শহীদদের ইতিহাস। বাঙলাদেশের ইতিহাস শহীদ আর ঘাতকদের ইতিহাস।

— হুমায়ুন আজাদ



৮৫

বাঙলাদেশ অমরদের দেশ। এ-দেশের প্রতি বর্গমিটার মাটির নিচে পাঁচ জন ক’রে অমর ঘুমিয়ে আছেন।

— হুমায়ুন আজাদ


৮৬

একবার রাজাকার মানে চিরকাল রাজাকার; কিন্তু একবার মুক্তিযোদ্ধা মানে চিরকাল মুক্তিযোদ্ধা নয়।

— হুমায়ুন আজাদ

৮৭

মানুষ মরলে লাশ হয়, সংস্কৃতি মরলে প্রথা হয়।

— হুমায়ুন আজাদ

৮৮

টাকাই অধিকাংশ মানুষের একমাত্র ইন্দ্রিয়।

— হুমায়ুন আজাদ

৮৯

সবচেয়ে হাস্যকর কথা হচ্ছে একদিন আমরা কেউ থাকবো না।

–হুমায়ুন আজাদ


৯০

গাধা একশো বছর বাঁচলেও সিংহ হয় না।

— হুমায়ুন আজাদ

৯১

এমন এক সময় আসে সকলেরই জীবনে যখন ব্যর্থতাগুলোকেই মনে হয় সফলতা, আর সফলতাগুলোকে মনে হয় ব্যর্থতা।

— হুমায়ুন আজাদ


৯২

বাঙালি মুসলমান জীবিত প্রতিভাকে লাশে পরিনত করে, আর মৃত প্রতিভার কবরে আগরবাতি জ্বালে।
— হুমায়ুন আজাদ


৯৩

কবিতা এখন দু-রকম: দালালি, ও গালাগালি।

— হুমায়ুন আজাদ


৯৪

বিনয়ীরা সুবিধাবাদী, আর সুবিধাবাদীরা বিনয়ী।

— হুমায়ুন আজাদ

৯৫

সৎ মানুষ মাত্রই নিঃসঙ্গ, আর সকলের আক্রমণের লক্ষ্যবস্তু।
— হুমায়ুন আজাদ


৯৬

বাঙলায় নারীদের শিক্ষার ধারা নারীকে স্বাধীন এবং স্বায়ত্তশাসিত করা নয়, তার লক্ষ্য উন্নতমানের শয্যাসঙ্গিনী উৎপাদন।

নারী– হুমায়ুন আজাদ


৯৭

পুরুষ উদ্ভাবন করেছে নারী সম্পর্কে একটি বড় মিথ্যা, যাকে সে বলেছে ‘চিরন্তনী নারী’।

—হুমায়ুন আজাদ


৯৮

“পৃথিবীতে রাজনীতি থাকবেই। নইলে ওই অসৎ, অপদার্থ, লোভী আর দুষ্ট লোকগুলো কী করবে?”

– হুমায়ুন আজাদ


৯৯

সৌন্দর্য রাজনীতির থেকে সব সময়ই উৎকৃষ্ট।

— হুমায়ুন আজাদ


১০০

বাঙলাদেশের রাজনীতিকেরা স্থূল মানুষ, তারা সৌন্দর্য বোঝে না ব’লে গণতন্ত্রও বোঝে না; শুধু লাইসেন্স-পারমিট-মন্ত্রীগিরি বোঝে।

— হুমায়ুন আজাদ

Leave a Comment